রহস্যময় গোলাপী গ্রহ (The Mysterious Pink Planet)

আমাদের  রহস্যেঘেরা এই মহাবিশ্বে রয়েছে  অভূতপূর্ব সব গ্রহ,নক্ষত্র এবং নীহারিকাপুঞ্জ। চারপাশ ঘিরে রয়েছে যেমন অন্ধকারের মায়া তেমনি পুরো মহাবিশ্বে রয়েছে  রহস্যেঘেরা। দিন দিন যতই বিজ্ঞানের উন্নতি হচ্ছে ততই আমরা ধীরে ধীরে রহস্যভেদ করতে সক্ষম হচ্ছি। আচ্ছা কেমন দেখাবে যদি একটি গ্রহ দেখতে পুরো গোলাপী  রঙের হয় ? কেমন দেখাবে যদি একটি নীহারিকা দেখতে কাঁকড়ার মতো দেখায়? কখনো কি এসব একবার ভেবে দেখেছেন? হয়তো আপনারা  ভাবছেন যে কিসব আবোল-তাবোল  বলছেন উনি, এসব কি আবার কখনো সম্ভব নাকি? আমি বলবো, হ্যাঁ এসব সম্ভব। আমাদের এই মহাবিশ্ব যেই পরিমাণ রহস্যময় বস্তু দিয়ে ঘেরা তাই এসব আশ্চর্যজনক জিনিস থাকাটাই স্বাভাবিক ব্যাপার।  বর্তমানে বিজ্ঞানীরা সবচেয়ে বেশি গবেষনা করে খুঁজে বেড়াচ্ছেন “Exoplanets” দেরকে  যার মানে হলো বাইরের গ্রহ। আমাদের  এই  সোলার  সিস্টেমের  বাইরের গ্রহগুলো যারা  কোনো একটি  নির্দিষ্ট  নক্ষত্রকে  কেন্দ্র করে  তার  চারপাশে  ঘুরছে  তাদেরকে বলা হয় “Exoplanets” বা বাইরে গ্রহ। এখন পর্যন্ত কয়েক হাজার এক্সোপ্লানেট আবিষ্কৃত হয়েছে যার অধিকাংশই নাসার “Kepler Space Telescope” দ্বারা আবিষ্কৃত। কোনো  কোনো গ্রহের নাম এই কারণে এই টেলিস্কোপের নামের সাথে মিল রেখে রাখা হয়েছে। যেমন এমনই একটি গ্রহের নাম রাখা হয়েছে  “Kepler- 10 b.” এরকমই  একটি  আশ্চর্যজনক গ্রহের পরিচয় আজ আমরা  জানতে চলেছি। গ্রহটি  দেখতে  ঠিক একটি বাবলগামের  মতো  গোলাপী  রঙের। তাহলে  চলুন জেনে আসা যাক এই গ্রহটি সম্পর্কে।

চিত্রঃ “Gliese 504b”

“Gliese 504b” :

গ্রহটির  নাম  রাখা  হয়েছে  “Gliese 504b”  যাকে  সংক্ষেপে  বলা  হয় “GJ 504b.” এটি  একটি  জোভিয়ান  গ্রহ  বা  Jovian Planet.  বৃহত্তম  Gas Giant  কে  বলা হয়  Jovian  Planet.  আমাদের  সোলার  সিস্টেমে  এরকম  চারটি  জোভিয়ান প্লানেট  রয়েছে  আর  তারা  হলোঃ  Jupiter,  Saturn,  Uranus  এবং  Neptune. আর  এই  গোলাপী  গ্রহটি  হলো  এক্সোপ্লানেট গুলোর  মধ্যে  অন্যতম  একটি জোভিয়ান প্লানেট  যা  59 Virginis ( GJ 504 ) কে  কেন্দ্র  করে  ঘুরছে।  এই  গ্রহটি আবিষ্কৃত  হয়  Hawaii  এ বিদ্যমান  Mauna  Kea  Observatory  এর  ৮.২ মিটার Subaru  Telescope  দ্বারা।  সর্বপ্রথম  ২০১১  সালে  এই  গ্রহের  ছবি  ধরা  পড়ে এবং  Exoplanet  হিসেবে  ২০১২  সালে  স্বীকৃতি  পায়।  তবে  ২০১৩  সালের ফেব্রুয়ারি  মাসে   Kuzuhara  et  al  একটি  গবেষণাপত্র  “The Astrophysical Journal” এ  পাঠান  এবং  তা  সেপ্টেম্বর  মাসে  তা  প্রকাশিত  হয়।  এই  গ্রহের তাপমাত্রা   544±10 К (271±10 °C)  যা  অত্যন্ত  শীতল  অন্যান্য  এক্সোপ্লানেটদের  তুলনায়। এই  গ্রহটি  আকারের  দিক  দিয়ে  আমাদের  বৃহস্পতি  গ্রহের চেয়ে  ৪  গুণ  বড়।  এই  গ্রহটির  বয়স  নিয়ে  কেউই  এখনো  নিশ্চিত  নন।  তবে ধারণা  করা  হচ্ছে  যে  গ্রহটি   ১০০-২০০  মিলিয়ন  বছর  পুরনো। এই  গ্রহটির বয়স  বেশি  শুনতে  মনে  হলেও  এটি  একটি  Youngest Planet.  এটি  তার নক্ষত্রের  চেয়ে  43.5 AU  দূরে  অবস্থিত  যা  আমাদের  সূর্য  থেকে  বৃহস্পতি গ্রহের  দূরত্বের  চেয়ে  প্রায়  ৯  গুণ।

বিজ্ঞানীরা  প্রতিনিয়ত  এমনই  আরও  অসংখ্য  exoplanet  খুঁজে  যাচ্ছেন  তাদের দিন-রাত  গভীর  গবেষণার  মাধ্যমে।  এমন  আরো  অসংখ্য  এক্সোপ্লানেটস বিদ্যমান  রয়েছে  আমাদের  এই  অসীম  মহাবিশ্ব।  তবে  এসব  এক্সোপ্লানেট খোঁজার  পেছনে  আরেকটি  উদ্দেশ্য  হচ্ছে  আমাদের  সোলার  সিস্টেমের কাছাকাছি  কোনো  একটি  এক্সোপ্লানেট  খুঁজে  পাওয়া  যেখানকার  পরিবেশ হবে আমাদের  পৃথিবীর  মতোই  বসবাসযোগ্য।  হয়তো  একদিন  আমরা  এমনই একটি  এক্সোপ্লানেট  খুঁজে  পেতে  সক্ষম  হবো  যেখানে  আমরা  এই  পৃথিবীর মতোই  সেখানে  বসবাস  করতে  সক্ষম  হবো  আর  ঐ  দিনটির  প্রতীক্ষায় আমরা  সবাই  আজও  পথ  চেয়ে  আছি।